Creating Healthy Bangladesh...

📧Mail : doctorshomebd@gmail.com
  📞Contact : +880 1886 454 838

FAQs

Spread the love

মানুষের দৈনন্দিন জীবনে সুস্থ সবল থাকার জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক ব্যামের কোন বিকল্প নাই । এক্ষেত্রে মুষ্টিমেয় কিছু স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ ছাড়া কারোরই প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাস ,শারীরিক ব্যামের সম্পর্কে ধারণা নাই বললে চলে । এটা নিয়ে দুঃচিন্তার কিছু নায়, আপনার যে কোন ধরনের প্রশ্ন আমাদেরকে জানান – আমারা সঠিক ভাবে আপনার প্রশ্নের উত্তর অথবা সাজেশন প্রদান করবো আমাদের বিশেষজ্ঞ দ্বারা । সুতারাং আর দেরি না করে করে ফেলুন আপনার প্রশ্ন –

ক্যান্সার এর জন্য বাংলাদেশে কম খরচে ভালো হাসপাতাল কোনটি ?

প্রাণঘাতী এই রোগের চিকিৎসা সব সময়ই অত্যন্ত ব্যয়বহুল। বাংলাদেশে এখন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ক্যান্সারের চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকলেও, মূলত ওষুধের উচ্চমূল্যের কারণে সাধারণ মানুষের জন্য ক্যান্সারের চিকিৎসা নেওয়া অত্যন্ত ব্যয়সাধ্য।

  • সরকারি পর্যায়ে ক্যান্সার চিকিৎসায় দেশের কয়েকটি মেডিকেল কলেজ এবং বিশেষায়িত হাসপাতালে কোবাল্ট ও লিনিয়ার এক্সিলারেটর মিলিয়ে ১৬টি রেডিওথেরাপি মেশিন রয়েছে। যেহেতু আপনি ঢাকার ব্যাপারে জানতে চাইছেন, তাই উত্তরটি ঢাকা কেন্দ্রিকই দিচ্ছি। বাংলাদেশে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অনকোলজি বিভাগে বেশ কিছু ভালো অনকোলজিস্ট (ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ) আছেন, সেখানে ভালো মানের চিকিৎসা হয়ে থাকে National Institute of Cancer Research & হাসপাতাল (জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট) টিবি গেটে অবস্থিত, সেখানে মোটামোটি ভালোমানের চিকিৎসা প্রদান করা হয়ে থাকে। মহাখালীতে অবস্থিত জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালের ৫০ গজ উত্তরে জাতীয় ক্যান্সার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের অবস্থান।
  • আহসানিয়া মিশন ক্যন্সার হাসপাতাল (মিরপুর) স্বয়ংসম্পূর্ণ ক্যান্সার হাসপাতাল এখন ঢাকায়। এছাড়াও ঢাকার বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও অনকোলজিস্ট বিশেষজ্ঞরা প্রাকটিস করে থাকেন। আপনি আপনার রোগীকে সেখানেও নিয়ে যেতে পারেন। বাংলাদেশে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অনকোলজি বিভাগের প্রধান জাফর মো. মাসুদ শুনেছি একজন নামকরা অনকোলজিস্ট। তবে, আসার কথা এই যে, চীনের আর্থিক সহায়তায় ঢাকায় এক হাজার শয্যার আন্তর্জাতিক মানের অত্যাধুনিক ক্যান্সার হাসপাতাল স্থাপন করা হবে। ইতিমধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত (এমওইউ) হয়েছে।

জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট এর কয়েকজন রোগীরা  বলেছেন, বেসরকারি হাসপাতালের তুলনায় সরকারি এই হাসপাতালে খরচ কিছুটা কম। কিন্তু লম্বা সময় ধরে সেটাও সামাল দিতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

ক্যান্সারে আক্রান্ত একজন নারী বলেছেন, সময়মতো হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা পাওয়ার জন্যও তাদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়।

“আমি ঢাকার বাইরে থেকে আসি। কিন্তু এখানে সময়মতো সিরিয়াল পাই না। আসলে বলে ১০দিন পরে আসেন। আবার কয়েকদিন পর আসতে বলে। আমি সময়মতো চিকিৎসা পাই না। টাকাও অনেক খরচ হয়। সেটা যোগাড় করাও আমাদের মতো নিম্ন আয়ের মানুষের সমস্যা, খুব সমস্যা।”

কাশির সিরাপ কি কার্যকরী?

উত্তর : না।

ব্যাখ্যা : অধিকাংশ চিকিৎসকই মনে করেন যে, বেশিরভাগ কাশি প্রতিরোধক সিরাপই আসলে কাজ করে না। সিরাপগুলোতেই মূলত কোডেইন এবং ডেক্সট্রোমেথরফেন রয়েছে যেগুলোই শুধু কাশি উপশম করতে পারে। ব্রোমোফেরামিন একধরনের এ্যন্টিহিষ্টামিন যা ‘ডিমেট্যাপ’-এ রয়েছে।

চিনিযুক্ত কোমলপানীয় কি ডায়াবেটিস রোগের ঝুঁকি বাড়ায়?

উত্তর : হ্যাঁ।

ব্যাখ্যা : অধিকাংশ স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষণাই চিনিযুক্ত সোডার বিরোধিতা করা হয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, যে মহিলারা দিনে এক বা দুই বোতল চিনিযুক্ত কোমলপানীয় পান করে তাদের থেকে মাসে যারা এক বোতল পানীয় পান করে, তাদের ডায়াবেটিস রোগের ঝুঁকির হার শতকরা ৮৩ ভাগ।

ডিম কি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়?

উত্তর : না।

ব্যাখ্যা : যদিও ডিমের লাল অংশ যা চর্বির মত দেখায়, কোলেস্টেরলের প্রধান উৎস, কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে, যে শরীরে স্যাচুরেটেডে ফ্যাট (পশু চর্বি) ডিমের কুসুমের চাইতেও বেশি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়। অতএব, গবেষকরা সিদ্ধান্ত টেনেছেন যে, স্বাভাবিক কোলেস্টেরল মাত্রার একজন স্বাস্থ্যবান ব্যক্তি প্রতিদিন তাদের খাদ্যতালিকায় ডিম উপভোগ করতে পারেন।

বাদামে কি মেদ বাড়ে?

উত্তর : না।

ব্যাখ্যা : বাদামের মধ্যে প্রায় শতকরা ৭৫ ভাগ স্নেহ পদার্থ থাকে। কিন্তু চর্বিযুক্ত খাদ্য যে সবসময় মেদ বাড়ায় তা নয়। গুরুত্বপূর্ণ চর্বিযুক্ত খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ। বাদামে বেশ স্বাস্থ্যকর স্নেহ পদার্থ থাকে যা ক্ষুধা নিবৃত্তিতে বেশ কার্যকর। এগুলো প্রোটিন এবং আঁশযুক্ত উপাদানের খুব উৎকৃষ্ট উৎস। গবেষণায় দেখা গেছে, আগে যা ধারণা করা হতো তা থেকে একটি কাগজী বাদামে ২০% ক্যালরি কম থাকে।

ফলের রস খাওয়ার উপকারিতা কি আস্ত ফলের চেয়ে বেশি?

উত্তর : না।
ব্যাখ্যা : ফলের রসের চাইতে আস্ত ফলে উপকারিতা পুষ্টির বিচারে বেশি। কারণ, ফলের রস বের করতে গিয়ে খোসা এবং শাঁস গাদা করে রাখার ফলে আঁশ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মত গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলি নষ্ট হয়ে যায়। তুলনামূলকভাবে, একটি পাঁচ আউন্সের কমলার রসে রয়েছে ৬৯ ক্যালরি, .৩ গ্রাম আঁশ এবং ১৬ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম অন্যদিকে একই সমান ক্যালরির একটি আস্ত কমলায় রয়েছে ৩.১ গ্রাম আঁশ এবং ৬০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম।

অ্যানজাইনা(Angina) বা হৃৎপিন্ড জনিত বুক ব্যাথা কী?

হৃৎপেশি যখন পর্যাপ্ত পরিমানে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সরবরাহ পায় না তখন বুক নিষ্পেষিত হচ্ছে বা দম বন্ধ হয়ে আসছে এমন মারাত্বক অস্বস্তি অনুভূত হলে সে ধরনের বুক ব্যাথাকে অ্যানজাইনা বলে।অ্যানজাইনাকে সাধারণত হার্ট অ্যাটাকের পূর্বাবস্থা মনে করা হয়।

অজ্ঞান হয়ার ব্যাক্তির প্রাথমিক চিকিৎসা ?

অজ্ঞান হয়ে গেলে:
বিভিন্ন কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে । অজ্ঞান ব্যক্তির শ্বাস-প্রশ্বাস চালু রাখা জরুরি। যদি পানিতে ডুবে কেউ অজ্ঞান হয়, তবে তার পেটে চাপ দিয়ে অতিরিক্ত পানি বের করে দিতে হবে। এরপর তাকে উপুড় করে শুইয়ে দিতে হবে।
যদি শ্বাসকষ্টজনিত কারণে কেউ অজ্ঞান হয়, তবে তাকে চিৎ করে শুইয়ে মাথার দিকটা উঁচু করে দিতে হবে। যদি বৈদ্যুতিক শকের ফলে বা রক্তচাপ নেমে যাওয়ার কারণে কেউ অজ্ঞান হয়, তবে তার পায়ের দিকটা উঁচু করে দিতে হবে । প্রয়োজনে মুখে মুখ লাগিয়ে কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দিতে হতে পারে। তবে এই প্রক্রিয়াটি হাতে-কলমে শিখে নিতে হবে।অজ্ঞান-হয়ে-গেলে-পোস্ট-ছবি

কাশি হলে বাজারে প্রচলিত কফ সিরাপ বা কাশির তরল ওষুধ সেবন করা উচিত কি?

ডা. আবু নাঈম, মেডিসিন বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, ঢাকা

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া দোকান থেকে কিনে কাশির ওষুধ সেবন করা মোটেই উচিত নয়। কাশির সঠিক কারণ জেনে সে অনুযায়ী চিকিৎসা নেওয়া উচিত। যেমন: হাঁপানির কারণে কাশি হলে এ-জাতীয় কফ সিরাপ বরং উল্টো কাশি বাড়িয়ে দিতে পারে। অনেক সময় এ ধরনের সিরাপ সেবনে একরকম নির্ভরতা তৈরি হয়, যা ক্ষতিকর। মোটকথা, কাশি সংক্রমণ, হাঁপানি, অ্যালার্জি এমনকি হূদ্যন্ত্র বা অন্যান্য রোগের একটি লক্ষণ হতে পারে। না জেনে ওষুধ খাওয়া তাই ঠিক নয়।

হঠাৎ করে গরম চা, কফি বা স্যুপ খেয়ে জিব ও মুখের ভেতর পুড়ে গেলে কী করা উচিত?

অধ্যাপক অরূপ রতন চৌধুরী, দন্ত বিভাগ, ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

আমাদের মুখগহ্বরের ঝিল্লি নিজে থেকেই এ ধরনের মৃদু পোড়া বা ছ্যাঁক লাগাকে প্রতিরোধ করতে পারে। প্রথমে জ্বালা করলেও তা অচিরেই সেরে যায়। তবে গরম ছ্যাঁকা লাগার সঙ্গে সঙ্গে ঠান্ডা বা স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি মুখে দিয়ে কুলি করলে আঘাত ও জ্বালা অনেক কমানো যায়। পোড়ার মাত্রাও কমে আসে। ক্যানালগ ইন ওরাবেস নামের মলম একটি কটন বাড দিয়ে ধীরে ধীরে জিব ও ভেতরের পোড়া অংশে প্রলেপ দিয়ে দিলেও দ্রুত সেরে যায়।

ক্লান্তির সঙ্গে মাথাব্যথার কোনো সম্পর্ক আছে কি?

ডা. মো. ফাহমিদুল হক,মেডিসিন বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

ক্লান্তির সঙ্গে মস্তিষ্কের পেইন সেন্টারগুলো উত্তেজিত হয়। তাতে মাথাব্যথার সৃষ্টি হয়। ক্লান্তির ব্যথা সারা শরীরে অনুভূত হয় এবং এর সঙ্গে দুশ্চিন্তা, ঘুমের সমস্যা, ডিপ্রেশন ও মাথাব্যথা থাকে। ক্লান্তিবোধের জন্য পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিলেই মাথাব্যথা ভালো হয়ে যায়।

চশমার পরিবর্তে কনটাক্ট লেন্স ব্যবহার করার কি কোনো ক্ষতিকর দিক আছে ?

অধ্যাপক মো. নজরুল ইসলাম, চক্ষু বিভাগ, বারডেম হাসপাতাল

আজকাল অনেকেই চশমার পরিবর্তে কনটাক্ট লেন্স ব্যবহার করেন। কেবল সৌন্দর্যবর্ধনই নয়, এর আরও কিছু উপকারিতা আছে। যাঁদের দুই চোখের পাওয়ারে অনেক তারতম্য, তাঁদের জন্য লেন্সই ভালো। এতে চশমা ভেঙে দুর্ঘটনার আশঙ্কা কম বলে খেলোয়াড়দের জন্য ভালো। এ ছাড়া লেন্স ব্যবহারকারীদের সময়ের সঙ্গে দৃষ্টিশক্তি হ্রাসের প্রবণতাও কম। তবে কারও কারও কনটাক্ট লেন্সে অ্যালার্জি হয়, চোখ লাল হয় ও চুলকায়। তাঁদের ব্যবহার না করাই ভালো। লেন্স ব্যবহারের সঠিক নির্দেশনা মেনে চলা উচিত। রাতে অবশ্যই খুলে ঘুমাতে হবে। লেন্স একটি নির্দিষ্ট দ্রবণে ভিজিয়ে রাখতে হয় ও পরদিন সকালে হাত পরিষ্কার করে লেন্স পরিষ্কার করে চোখে লাগাতে হয়। যত্নের সঙ্গে ব্যবহার করলে এর তেমন কোনো ক্ষতিকর দিক নেই।

গলাব্যথায় গরম বাষ্প শ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করলে কি উপকার হয় ?

ডা. মো. নাজমুল ইসলাম, নাক-কান-গলা বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

সাইনোসাইটিসের সমস্যা থেকে থাকলে গরম ধোঁয়া ওঠা বাষ্প শ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করতে বলা হয়। এতে শ্বাসতন্ত্রে প্রদাহ কমে, আঠালো তরল নরম ও পাতলা হয় এবং সাইনাসগুলো পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। সবকিছু মিলে সাইনোসাইটিস, গলাব্যথা বা সর্দি-কাশিতে কিছুটা আরাম পাওয়া যায়। অনেকে মেনথলের বাষ্প গ্রহণ করার কথাও বলে থাকেন।

তিল থেকে কি ক্যানসার হতে পারে ?

ডা. এম মনিরুজ্জামান, চর্ম বিভাগ, বারডেম হাসপাতাল

বেশির ভাগ তিলই নির্দোষ। তবে তিল থেকে কখনো কখনো ক্যানসার হতেও পারে। এ ক্ষেত্রে তিলের এবিসিডি লক্ষ রাখতে হবে। যদি তিলের ব্যাস (এরিয়া), সীমা (বর্ডার), রং (কালার) বা আকারের (ডায়ামিটার) কোনো পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়, তবে সতর্ক হতে হবে। হঠাৎ করে তিলের আকার, আকৃতি ও রঙের পরিবর্তনের সঙ্গে চুলকানিও একটি খারাপ সংকেত। এ ধরনের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত বায়োপসি করার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সকালের রোদের দিকে তাকালে কি চোখের দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি পায় ?

ডা. হারুন-উর-রশীদ, চক্ষু বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

সকালের রোদের দিকে তাকিয়ে থাকলে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ে—এটি একটি ভ্রান্ত বিশ্বাস। বরং সকালের আলোতে অতিবেগুনি রশ্মি বেশি থাকে, যা লেন্সকে ধীরে ধীরে ঘোলা করে দিয়ে ছানিপড়া প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে এবং চোখের সংবেদনশীল অংশে অবস্থিত ম্যাকুলার ক্ষয় ও ক্ষতিসাধন করতে পারে। অতিবেগুনি রশ্মি থেকে রেহাই পেতে দিনের যেকোনো সময় রোদে বের হলে অবশ্যই সানগ্লাস বা রোদচশমা ব্যবহার করা উচিত।

আই পিল খেলে কোনো সমস্যা হয় ?

ডা. রোনা লায়লা, স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিভাগ, বারডেম হাসপাতাল

আই পিল হচ্ছে ইমারজেন্সি পিল। দুর্ঘটনাবশত বা অসচেতন মুহূর্তে ঘটে যাওয়া অনিরাপদ সম্পর্কের পর এটি খেতে হয়। এটি কোনো স্থায়ী জন্মনিরোধক পদ্ধতি নয়। তা ছাড়া এতে উচ্চমাত্রার হরমোন থাকে। তাই এটি বারবার বা নিয়মিত খাওয়া যাবে না। এতে নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে। বরং কোনো নিরাপদ জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহার করুন।

টক খেলে কি রক্তচাপ কমে ?

অধ্যাপক এ কে এম মুজিবুর রহমান, মেডিসিন বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

টক খাওয়ার সঙ্গে রক্তচাপের কোনো সম্পর্ক নেই। এটি একটি প্রচলিত বিশ্বাস যে টক খেলে রক্তচাপ কমে এবং এ জন্য অনেকে তেঁতুল গোলা, লেবু ইত্যাদি খেয়ে থাকেন। তেঁতুলে শক্তিশালী টারটারিক অ্যাসিড থাকায় এতে অনেকের পেটে সমস্যা হতে পারে। তবে লবণের সঙ্গে রক্তচাপের সুস্পষ্ট সম্পর্ক আছে। তাই লবণ খাওয়া কমিয়ে দিতে হবে। এ ছাড়া রক্তচাপের রোগীরা স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস রপ্ত করুন, ধূমপান বর্জন করুন, নিয়মিত হাঁটুন, ওজন কমান। নিয়মিত রক্তচাপ মাপুন ও ওষুধ সেবন করুন। এর কোনো বিকল্প নেই।

খাদ্যে রুচি বাড়ানোর উপায় কী ?

অধ্যাপক এ এইচ এম রওশন পরিপাকতন্ত্র বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

খাদ্যে অরুচি কোনো রোগ নয়। এটি হতে পারে নানা রোগের লক্ষণ। দীর্ঘমেয়াদি সংক্রমণ, যক্ষ্মা, পেটের নানা সমস্যা, ক্যানসার, বিভিন্ন ওষুধের প্রভাবে খাদ্যে অরুচি হতে পারে। মানসিক চাপ ও সমস্যায়ও রুচি কমে যায়। সহজপাচ্য ও মুখরোচক খাবার, ফল বিশেষত টক ফল যেমন আমড়া, বরই, আচার, লেবু ইত্যাদি খেয়ে রুচি ফেরানোর চেষ্টা করা যায়। কিন্তু সমস্যা দীর্ঘমেয়াদি ও তীব্র হলে পরীক্ষা করে সঠিক রোগ নির্ণয় করা উচিত।

ভিটামিন খেয়ে কি দেহের শক্তি বৃদ্ধি করা যায় ?

অধ্যাপক এ এইচ এম রওশন, পরিপাকতন্ত্র বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

ভিটামিন শরীরের বিপাক ক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে বলে এটি দেহের জন্য একটি অনিবার্য বা আবশ্যকীয় উপাদান। কিন্তু এর নিজস্ব কোনো শক্তি উৎপাদনকারী ক্ষমতা নেই। কারও দেহে নির্দিষ্ট ভিটামিনের অভাব থেকে থাকলে তার চাহিদা পূরণ করার জন্য সেটি গ্রহণ করা যেতে পারে। নয়তো আমাদের দৈনন্দিন ভিটামিনের প্রায় পুরোটাই সুষম খাদ্য গ্রহণ করার মাধ্যমে পেতে পারি। দুর্বলতা বা অসুস্থতার সুনির্দিষ্ট কারণ বের করে তার চিকিৎসা না করলে কেবল ভিটামিন খেয়ে তা দূর করা যাবে না।

দাঁত ব্রাশ করার সঠিক নিয়ম কী ?

অধ্যাপক অরূপ রতন চৌধুরী, দন্ত বিভাগ, বারডেম

টুথব্রাশ ওপরের পাটি থেকে শুরু করে নিচে নামাতে হবে। এভাবে ওপর-নিচ কয়েকবার। তারপর হাঁ করে ভেতরের অংশ ব্রাশ করুন। এবার ভেতর দিকে ওপরে। শেষে জিবের ওপর ঘষুন। তারপর হাতের আঙুল দিয়ে মাড়ি ম্যাসাজ করুন। সব শেষ হলে ভালো করে কুলকুচি করুন।

জোরে জোরে নাকের সর্দি ঝাড়া কি খারাপ ?

ডা. মো নাজমুল ইসলাম, নাক-কান-গলা বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

সব সময় খারাপ না-ও হতে পারে। তবে কারও নাকের সেপটাম বাঁকা থাকে, কখনো ঝিল্লি পর্দায় প্রদাহ থাকলে জোরে নাক ঝাড়া বা নাক খোঁচানোর কারণে রক্তপাত হতে পারে। নাক পরিষ্কার করার সময় হালকা কুসুম গরম পানি বা লবণ-পানি দিয়ে পরিষ্কার করাই ভালো। শুকনো জমে থাকা সর্দি খোঁচাখুঁচি না করে পানি দিয়ে পরিষ্কার করা উচিত।

অল্প বয়সে চুল পাকা বা সাদা হওয়া কি খারাপ স্বাস্থ্য নির্দেশ করে ?

ডা. মেহেদী হাসান, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ

সাধারণত অল্প বয়সে চুল পাকা বা সাদা হয় বংশগত কারণে। এর সঙ্গে স্বাস্থ্যের তেমন কোনো সম্পর্ক নেই। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে যেমন থাইরয়েডের সমস্যা, রক্তশূন্যতা, ভিটামিন ‘বি’ ১২ স্বল্পতা ও শ্বেতীরোগ থাকলে কম বয়সে চুল পেকে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে সেই রোগের চিকিৎসা করতে হবে। চুল কালো বা রং করার জন্য কেউ কেউ রাসায়নিক ব্যবহার করেন। এটি অনেক সময় চুল ও মাথার ত্বকের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। তাই ভেবেচিন্তে এগুলো ব্যবহার করা উচিত।

কানের ময়লা কীভাবে পরিষ্কার করা উচিত ?

ডা. ওয়াসিফ হোসেন শাহ্, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ

নিজে পরিষ্কার করতে গেলে জমে থাকা খোলের বেশির ভাগই ভেতরে চলে যায়। কানে খোল আটকে গেলে কানে ব্যথা হয়, কম শোনা যায়। পরিষ্কার করা সম্ভব না হলে খোল গলানোর ওষুধ রয়েছে। তাতেও কাজ না হলে কিংবা অবস্থা বেশি খারাপ হলে অজ্ঞান করে কান পরিষ্কার করে দিতে হয়। যাঁদের কানে খোল হওয়ার প্রবণতা রয়েছে তাঁরা নিয়মিত কানে চার-পাঁচ ফোঁটা করে অলিভ অয়েল দিতে পারেন।

গরমের দিনে খুব ঠান্ডা পানি বা বরফ দেওয়া পানি পান করা কি ক্ষতিকর?

ডা. মো. নাজমুল ইসলাম, নাক, কান ও গলা বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

বাইরে রোদ আর তাপ এ সময় খুব বেশি। আর বরফ ঠান্ডা পানির তাপমাত্রা অনেক কম। তাপমাত্রার আকস্মিক তারতম্য ঘটলে গলার ভেতরের যে সাধারণ উপকারী জীবাণু বা মাইক্রোফ্লোরা আছে, সেগুলো মারা যায়। আর তখনই ঝুঁকি বাড়ে ক্ষতিকর জীবাণু সংক্রমণের। বিশেষত শিশুদের টনসিলে সংক্রমণ, গলায় সংক্রমণ বা প্রদাহ হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এ জন্য বাইরে থেকে বা খুব গরম থেকে এসে প্রথমে একটু শীতল হয়ে নিন, বিশ্রাম নিন, ঘরের তাপমাত্রায় মানিয়ে নিন এবং তারপর স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি ও ঠান্ডা পানি মিশিয়ে পান করুন।

কানে হেডফোন বা ইয়ারফোন বেশি সময় ধরে ব্যবহার করা কি খারাপ ?

ডা. মো. নাজমুল ইসলাম, নাক, কান, গলা বিভাগ ঢাকা মেডিকেল কলেজ

কানে ব্যথা, অস্বস্তি ও অস্বাভাবিক শব্দ হতে পারে। এ ছাড়া বহিঃকর্ণের প্রদাহ ও সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে। দীর্ঘদিন ধরে কানে এই শব্দদূষণ ধীরে ধীরে শ্রবণশক্তি কমিয়ে দিতে পারে। এ ছাড়া রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনাপ্রবণতাও বেড়ে যায় বলে গবেষণায় প্রমাণিত। তাই গান শোনা বা সেলফোনে কথা বলার জন্য অতিরিক্ত ও বেশি সময় ধরে কানে ইয়ারফোন ব্যবহার করা উচিত নয়।

নখের কোনা দেবে গেলে কি সেই নখ তুলে ফেলতে হয়?

ডা. এনায়েত মনজুর, ইব্রাহিম খালেক জেনারেল ও ফুট কেয়ার হাসপাতাল, ঢাকা

আমাদের নখ কাটার ভুলের জন্য অনেক সময় নখ আঙুলের মাংসের ভেতর দেবে যায় বা ঢুকে যায়। এ ক্ষেত্রে নখটা পুরোপুরি না হলেও আংশিক তুলে ফেলতে হবে। পরে নখ কাটার সময় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

মা-বাবার ডায়াবেটিস থাকলে সন্তানের তা হওয়ার আশঙ্কা কতটুকু ?

ডা. ফিরোজ আমিন, হরমোন ও ডায়াবেটিস বিভাগ,বারডেম হাসপাতাল

টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে পারিবারিক ইতিহাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। মা-বাবা যে কারও বা উভয়ের ডায়াবেটিস থাকার অর্থ হচ্ছে আপনি এ ঝুঁকির মধ্যে পড়ে গেছেন। এখন এই ঝুঁকি কমাতে আপনাকে জীবনধারায় আগে থেকেই পরিবর্তন আনতে হবে। সুষম ও পরিমিত খাদ্যাভ্যাস, নিয়মিত ব্যায়াম, ওজন হ্রাস ইত্যাদির মাধ্যমে আপনি ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে ফেলতে পারেন। জিনগত ঝুঁকি কমানোর কোনো উপায় নেই। তাই অন্য ঝুঁকিগুলো কমাতে আপনাকে সচেতন হতে হবে, তা না হলে ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা আরও ত্বরান্বিত হবে।

ওজোন নির্বীজন কি কার্যকর হতে পারে?

ওজোনের দ্বারা চোখ এবং শ্বাসনালীর জ্বালা সৃষ্টি হয়। দীর্ঘশ্বাস নেয়া হলে এর দ্বারা ফুসফুসের গুরুতর ক্ষতিও হতে পারে।

জনসাধারণের স্বাস্থ্যের মান বজায় রাখতে পারে না এমন ঘনত্বের গৃহের ভিতরের বাতাসে ওজোন প্রয়ােগ করা হলে তা কার্যকরভাবে ভাইরাস, ব্যাকটিরিয়া, ছাঁচ বা অন্যান্য জৈবিক দৃষককে অপসারণ করতে পারে না।

নিষ্কাশন পাইপগুলাে সঠিকভাবে বজায় রাখা এবং নিয়মিত U-ট্রাপগুলি পূরণ করা গুরুত্বপূর্ণ কেন?

U-ট্র্যাপগুলি নিষ্কাশন ব্যবস্থায় দুর্গন্ধযুক্ত এবং অস্বাস্থ্যকর পদার্থগুলি (ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস সহ) বসবাসের অঞ্চলে প্রবেশ থেকে বিরত রাখে। রুটিযুক্ত বা শুকনাে U-ট্র্যাপগুলি এই গুরুত্বপূর্ণ ফাংশনটিকে অস্বীকার করতে পারে। | প্রতি ড্রেনের আউটলেটে প্রতি সপ্তাহে আধ লিটার পানি ঢালুন। তদ্ব্যতীত, একজনকে নিয়মিত তাদের নিকাশী পাইপ, U-ট্রান্স এবং স্যানিটারি ফিটংগুলি পরিদর্শন করতে হবে এবং ক্ষতি পাওয়া গেলে তাৎক্ষনিক মেরামতের ব্যবস্থা করা উচিত। সেগুলি যথাযথভাবে কাজ করে তা | নিশ্চিত করার জন্য নিয়মিত U-ট্র্যাপগুলিতেও পানি যুক্ত করা উচিত।

কাশির আচারনবিধি কী?

হাঁচি বা কাশির সময় টিস্যু পেপার দিয়ে আপনার মুখ এবং নাকটি ঢেকে রাখুন। ময়লাযুক্ত | টিস্যুগুলিকে একটি লিড আবর্জনার বাক্সে ফেলে দিন, তারপর হাত ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। টিস্যু পেপার না পাওয়া গেলে আপনি নিজের ব্লাউজ বা উপরের হাতা দিয়ে আপনার মুখ এবং নাক | ঢেকে রাখতে পারেন।

যদি পানি এবং তরল সাবান না থাকে তাহলে কি আমি এর পরিবর্তে অ্যালকোহলভিত্তিক হ্যান্ডরব ব্যবহার করতে পারি?

যদি আপনার হাতে দৃশ্যমানভাবে ময়লা না থাকে তবে আপনি 70 থেকে 80% অ্যালকোহল | ভিত্তিক হ্যন্ডরব ব্যবহার করতে পারেন। এটি কার্যকরভাবে হাতের মধ্যে সংক্রামক রােগের ক্রস সংক্রমন্ত্রোধ করতে পারে। অ্যালকোহল-ভিত্তিক হ্যান্ডরব ব্যবহারের মধ্যে হাত ঘষবার কৌশলটি হাত ধােয়ার মতােই। আপনার হাতের সমস্ত পৃষ্ঠকে ঢাকতে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যালকোহল। ভিত্তিক হ্যান্ডরব প্রায় 3 থেকে 5 মিলি ব্যবহার করুন।

আমরা আমাদের তালুতে, তারপরে হাতের পিছনে, আংগুলের পিছনে, থাম্বস, আঙ্গুলের পরামর্শগুলি এবং তারপরে কজি ঘষি। আপনার। হাত শুকানাের আগ পর্যন্ত কমপক্ষে 20 সেকেন্ডের জন্য ঘষুন। অ্যালকোহল আপনার হাতে শুকিয়ে নিন, কাগজের তােয়ালে দিয়ে মুছে ফেলবেন না। ব্যবহারের আগে অ্যালকোহল-ভিত্তিক হ্যন্ডরবের মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখটি পরীক্ষা করে দেখুন।

পানি এবং তরল সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করার পরে পানির কল কীভাবে বন্ধ করা উচিত?

হাত পরিষ্কার হয়ে গেলে সরাসরি আবার পানির কলটি স্পর্শ করবেন না। উদাহরণস্বরূপ, কলটি বন্ধ করার আগে কোন কাগজের তােয়ালে দিয়ে কলটিকে আবৃত করে নিন।

মুখােশ পড়া ছাড়া শ্বাস নালীর সংক্রমণ রােধের অন্যান্য কী কী ব্যবস্থা রয়েছে?

মুখােশ পড়া ছাড়াও নিম্নলিখিত প্রতিরােধমূলক ব্যবস্থাগুলির উপর জোর দেওয়া উচিতঃ

হাতের স্বাস্থ্যবিধি হল রােগের বিস্তার হ্রাসের একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। জনগণের সদস্যদের হাতের স্বাস্থ্যকরন যথাযথভাবে এবং ঘন ঘন করা উচিত বিশেষত চোখ, নাক এবং মুখ স্পর্শ করার আগে; রক্ত এবং দেহের তরল থেকে তারা দৃশ্যমান নষ্ট হয়ে যাওয়ার বা সম্ভবত দূষিত হলে তাদের তরল সাবান এবং পানি দিয়ে হাত পরিষ্কার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। যখন হাতে দৃশ্যমানভাবে ময়লা থাকে না, তখন তাদের ৭০ থেকে ৮০% অ্যালকোহল ভিত্তিক হ্যান্ডরব দিয়ে পরিষ্কার করা যায়; শ্বাসের শিষ্টাচার এবং কাশি শালীনতা বজায় রাখা; অসুস্থ হলে বাড়িতেই থাকুন এবং অন্যের সাথে যােগাযােগ কমিয়ে দিন, সক্রমণের সম্ভাব্য উৎস থেকে দূরে থাকুনঃ

০ অপ্রয়ােজনীয় সামাজিক যােগাযােগগুলি হ্রাস করুন এবং জনাকীর্ণ স্থানগুলিতে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। যদি এটি প্রয়ােজনীয় হয়, তাহলে সেখানে থাকার সময়টা যত সম্ভব কমিয়ে ফেলুন। তদুপরি, সংক্রমণজনিত জটিলতার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের, যেমন: গর্ভবতী মহিলাদের বা দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থ ব্যক্তিদের একটি মাস্ক পরার পরামর্শ দেয়া হয়েছে; এবং সংক্রামিত ব্যক্তিদের সাথে ঘনিষ্ঠ যােগাযােগ এড়িয়ে চলুন।

একটি মাস্কের কাজ কি?

মুখােশ পরা আমাদের রক্ষা করতে পারে এবং অন্যের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ানাে থেকে বিরত রাখতে পারে। একটি মুখােশ নাক এবং মুখ ঢেকে রাখে। এটি তরল এবং বড় কণার ফোঁটাগুলির জন্য একটি শারীরিক বাধা সরবরাহ করে। সার্জিক্যাল মাস্ক (মুখােশ) হল এক ধরণের ফেস মাস্ক যা সাধারনত ব্যবহৃত হয়। বেশিরভাগ অস্ত্রোপচারের মুখােশগুলি একটি তিন-স্তর নকশা গ্রহণ করে যার মধ্যে একটি বাহ্যিক তরল – প্রতিরােধক স্তর অন্তর্ভুক্ত থাকে, একটি মাঝারি স্তর জীবানগুলির প্রতিবন্ধক এবং একটি অভ্যন্তরীণ আর্দ্রতা-শােষণকারী স্তর অন্তর্ভুক্ত করে। উপরের ফাংশন ব্যতীত মাস্ক বাঞ্ছনীয় নয় কারণ এটি শ্বাস। প্রশ্বাসের ফোঁটা দ্বারা সংক্রামিত। সংক্রামক রােগগুলির বিরুদ্ধে পর্যাপ্ত সুরক্ষা প্রদান করতে পারে না।

সার্জিক্যাল মাস্ক পরার জন্য সাধারণ বিষয়গুলির মধ্যে রয়েছেঃ

  • নিজেকে রক্ষা করার জন্য শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমনে ব্যক্তির যত্ন নেওয়ার সময়; বা ইনফ্লুয়েঞ্জা জন্য পিক মৌসুমে হাসপাতাল বা ক্লিনিক পরিদর্শন, অন্যের মধ্যে সংক্রমণের বিস্তার রােধ করতে শ্বাস প্রশ্বাসের লক্ষণগুলি থাকারসময়, যেমন: জ্বর, সর্দি, কাশি বা হাঁচি।

coVID-19 কিভাবে প্রতিরােধ করা যায়?

জনসাধারণকে অনুরােধ করা হচ্ছে যে তারা যেনাে বাইরে গিয়ে খাবারের জমায়েত বা অন্যান্য জমায়েতের মতাে সামাজিক ক্রিয়াকলাপে অংশগ্রহন না করে এবং যথাসম্ভব অন্যান্য ব্যক্তির সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখেন। সম্প্রদায়ে এই রােগের বিস্তার প্রতিরােধের জন্য সর্বদা কঠোরভাবে ব্যক্তিগত এবং পরিবেশগত স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখাই ব্যক্তিগত সুরক্ষার চাবিকাঠি:

অসুস্থ ব্যক্তিদের শ্বাসতন্ত্রের ভাইরাস সংক্রমণ রােধ করতে সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহার কার্যকরী। লক্ষণজনিত রােগীদের জন্য (হালকা লক্ষণ থাকলেও) সার্জিক্যাল মাস্ক পরা উচিত। জনপরিবহন নেওয়ার সময় বা জনাকীর্ণ স্থানে থাকার সময় একটি সারজিক্যাল মাস্ক পরুন। মুখােশ পরার আগে এবং পরে মুছে ফেলার সাথে হাতের স্বাস্থ্যকরতা সহ সঠিকভাবে একটি মাস্ক ব্যবহার করা জরুরি। ০ ঘন ঘন হাত স্বাস্থ্যকরন সম্পাদন করুন, বিশেষত কারও মুখ, নাক বা চোখ স্পর্শ করার।

আগে; খাওয়ার আগে; টয়লেট ব্যবহারের পড়ে, হ্যান্ডরাইলস বা দরজার নক হিসাবে জনসাধারণের ইনস্টলেশনগুলির স্পর্শ করার পরে বা যখন কাশি হাঁচি দেওয়ার পরে শ্বাস প্রশ্বাসের দ্বারা হাত দূষিত হলে। হাঁচি বা কাশির সময় আপনার মুখ এবং নাক টিস্যু পেপার দিয়ে ঢেকে রাখুন। ময়লাযুক্ত টিস্যুগুলিকে একটু আবর্জনার বাক্সে ফেলে দিন, তারপর হাত ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। তরল সাবান এবং পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন এবং কমপক্ষে ২০ সেকেন্ডের জন্য ঘষুন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং একটি নিষ্পত্তিযােগ্য কাগজের তােয়ালে দিয়ে শুকিয়ে নিন। হাত পরিষ্কার করার পর আবার সরাসরি পানির কলটিকে স্পর্শ করা যাবে না (উদাহরণস্বরূপ, কলটি বন্ধ করার আগে একটি কাগজের তােয়ালে ব্যবহার করা)।

যদি হাত ধােয়ার সুযােগ না থাকে বা যখন হাতে দৃশ্যমান ময়লা না থাকে তবে ৭০ থেকে ৮০% অ্যালকোহল ভিত্তিক হ্যান্ড্রাবের সাহায্যে হাতের স্বাস্থ্যকরতা নিশ্চিত করতে হবে বিকল্প হিসেবে। নিষ্কাশন পাইপগুলি সঠিকভাবে এবং নিয়মিত বজায় রাখুন (প্রায় এক সপ্তাহে) পরিবেশগত স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে প্রতিটি ড্রেনের আউটলেটে (U-ট্রাপস) প্রায় আধা লিটার পানি ঢালুন। সকল অব্যবহৃত ড্রেনের বহির্গমনপথ গুলাে বন্ধ করে দিন। টয়লেট ব্যবহার করার পরে, জীবাণু ছড়ানাে এড়াতে ফ্লাশ করার আগে টয়লেটের লিড নামিয়ে রাখুন। এবং শ্বাসকষ্টের লক্ষণগুলি থাকার সময়, একটি সারজিক্যাল মুখােশ পরুন, স্কুলে কাজ বা ক্লাসে অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকুন, জনাকীর্ণ জায়গায় যাওয়া এবং অবিলম্বে চিকিৎসার পরামর্শ নেয়ার চেষ্টা করুন।

আবহাওয়া উষ্ণ হয়ে গেলে কি COVID-19 স্বতঃস্ফুর্তভাবে অদৃশ্য হয়ে যাবে?

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে করােনাভাইরাসগুলি সাধারণত শুকনাে পরিবেশে কম তাপমাত্রায় দীর্ঘকাল বেঁচে থাকে এবং দীর্ঘকাল সক্রিয় থাকে।

coVID-19 এর জন্য কী কোন লক্ষন থাকবে না? রােগীরা কী রাস্তায় হঠাত মারা যাবে?

মেইনল্যান্ড স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের দেওয়া তথ্য অনুসারে, এই রােগের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, অসুস্থতা, শুকনাে কাশি এবং শ্বাসকষ্ট। কিছু মামলা গুরুতর অবস্থায় ছিলাে। বৃদ্ধ বয়সী বা অন্তর্নিহিত রােগের লােকেরা গুরুতর অবস্থার অবনতির ঝুঁকিতে বেশি। শ্বাসকষ্টের লক্ষণগুলি উপস্থিতি থাকলে, একটি অস্ত্রোপচারের মুখােশ পরুন, স্কুলে কাজ করা বা ক্লাসে পড়া থেকে বিরত থাকুন, জনাকীর্ণ জায়গায় যাওয়া এবং তাৎক্ষণিকভাবে চিকিৎসার পরামর্শ নেওয়ার চেষ্টা করুন, সাম্প্রতিক যাতায়াতের ইতিহাস এবং পশুপাখির যে কোনও প্রকাশের বিষয়ে ডাক্তারকে অবহিত করার উদ্যোগ নিন এতে যথাসময়ে যথাযথ ব্যবস্থাপনা দেওয়া যেতে পারে।

coVID-19 এর জন্য মৃত্যুর হার কি খুব বেশি?

গুরুতর তীব্র শ্বাসযন্ত্র সিন্ড্রোম (SARS) এবং মধ্য প্রাচ্যের শ্বাসযন্ত্রের সিন্ড্রোম (MERS) করােনাভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট শ্বাসতন্ত্রের রােগ। প্রথমটির মৃত্যুর হার প্রায় 9.6%, তবে পরেরটির হার এক তৃতীয়াংশ ছাড়িয়ে যায়

একটি অভিনব করােনাভাইরাস coVID-19 এর কার্যকারক এজেন্ট হিসেবে পাওয়া যায়। কোন প্রতিকার কী নেই?

কোন নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। তবে অনেকগুলি লক্ষণের চিকিৎসা করা যায় এবং তাই রােগীর রােগশয্যার উপর ভিত্তি করে চিকিৎসা করা যায়। অধিকন্ত সংক্রামিত ব্যাক্তিদের জন্য সহায়ক যত্ন অত্যন্ত কার্যকর হতে পারে।

coVID-19 এর চিকিৎসা কী?

প্রধান চিকিৎসা সহায়কমূলক।

অণ্ডসফুটন সময়কাল কি? CoVID-19 এর জন্য এটি কত দিন?

“অণ্ডস্ফুটন সময়কাল” বলতে রােগের লক্ষণ দেখা দেওয়া এবংভাইরাসটি ধরার মধ্যের সময়কালকে বুঝায়। সাধারণত 5 দিন বা বেশিরভাগ COVID-19 অণ্ডস্ফুটনের সময়কাল আনুমানিক 1 থেকে 14 দিন পর্যন্ত। পর্যাপ্ত তথ্য পাওয়ার মাধ্যমে এই ধারণাগুলাে আরও সমৃদ্ধ করা হবে।

CoVID-19 সংক্রমণ করার পদ্ধতিটি কী?

সংক্রমণের প্রধান পদ্ধতিটি শ্বাসকষ্টের ফোটা গুলির মাধ্যমে হয়, যােগাযােগের মাধ্যমে ভাইরাসটি সংক্রমণও হতে পারে।

নভেল সংক্রামক রােগ কী?

নভেল ভাইরাস রােগ একটি সংক্রামক রােগ যা একটি মানব জনগােষ্ঠীতে নতুনভাবে উপস্থিত হয়েছে। এটি কোনও সংক্রামক এজেন্ট যেমন ভাইরাস ব্যাকটেরিয়া বা পরজীবী দ্বারা সৃষ্ট হতে পারে যা মানুষের জনসংখ্যার প্রাক-বিদ্যমান অনাক্রম্যতা কম বা নেই। এটির ফলে মৃত্যু এবং বিভিন্ন তীব্রতার দুর্বলতার পরিণতি হতে পারে এবং টেকসই সম্প্রদায়ের প্রাদুর্ভাব হতে পারে বা মহামারী হতে পারে।

নভেল করােনাভাইরাস কী?

করােনাভাইরাস হলাে প্রাণী এবং মানব উভয় ক্ষেত্রেই খুঁজে পাওয়া ভাইরাসের একটি বৃহৎ পরিবার। কিছু মানুষকে সংক্রামিত করে এবং সাধারণ ঠান্ডা থেকে মধ্য-পূর্ব শ্বাসতন্ত্র সিন্ড্রোম (MERS) এবং গুরুতর তীব্র শ্বাসতন্ত্র সিন্ড্রোম (SARS) এর মতাে আরও মারাত্মক রােগ পর্যন্ত অসুস্থতার কারণ হয়।

করােনাভাইরাস রােগ 2019 (CoVID-19) কী?

করােনাভাইরাস রােগ 2019 (COVID-19) দুবাই প্রদেশের উহান প্রদেশে ডিসেম্বর 2019 সাল থেকে ভাইরাল নিউমােনিয়া রােগের গুচ্ছকে বুঝায়। মেইনল্যান্ড স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের তদন্ত অনুসারে, একটি নতুন করােনাভাইরাসের উপস্থিতি দেখা গেছে।

COVID-19 এর লক্ষণগুলি কী কী?

মেইনল্যান্ড স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের দেওয়া তথ্য অনুসারে এই রােগের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, অসুস্থতা, শুকনাে কাশি এবং শ্বাসকষ্ট। কিছু মামলা গুরুতর অবস্থায় ছিলাে। বৃদ্ধ বয়সী বা। অন্তনিহিত রােগের লােকেরা গুরুতর অবস্থার অবনতির ঝুঁকিতে বেশি।